বদলগাছীতে ফসলী জমিতে পুকুর কাটার হিরিক নিরব ভূমিকায় প্রসাশন

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর বদলগাছীতে যত্রতত্র ভাবে ফসলী জমিতে পুকুর কাটার হিরিক, রহস্য জনক ভাবে প্রসাশন নিরব ভুমিকা পালন করছে। বদলগাছী উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ভাটা মালিক ও এক শ্রেনীর মাটি ব্যবসায়ীরা কৃষকদের কৌসুলে বাধ্য করছে ফসলী জমিতে পুকুর কাটতে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার মিঠাপুর ইউনিয়নের খাদাইল গ্রামের একটি মাঠে ড্রেজার (ভেকু)মিশিন দিয়ে ট্রাক্টর লাগিয়ে মাটি কাটার দূশ্য। আর এই মাটি বহনকারী ট্রাক্টরের বেপরোয়া চলাচলের কারণে ধুলোবালি উড়ে রাস্তা ঘাটে চলাচল করা পথচারিরা হুমকীর মূখে পড়ছে। এলাকাবাসী বলেন, খাদাইল বাজারের পূর্ব পাশের্ব সরকার ব্রিক্স সহ নতুন ৩ টি ইটভাটা নির্মান করা হয়েছে। মিঠাপুর বাজারের পশ্চিম পাশের্ব রয়েছে এন.আর.বি ব্রিক্স। এছাড়া অন্যান্য ইটভাটার মাটি বহনকারী ট্রাক্টর বেপরোয়া ভাবে চলাচল করছে। একই রাস্তাদিয়ে শত শত ট্রাক্টর চলাচলের কারণে গ্রামীণপাকা সড়ক গুলো ভেঙ্গে পড়েছে এবং ধুলোবালিতে সড়কের উপর ধুলোর স্তর
পড়েছে। খাদাইল গ্রামের কৃষক আব্দুর রহিম বলেন আমার সামান্য জমি সেখানে আমি ফসল করি কিন্ত এবছর আমার জমির দুপার্শে জমির মালিক পুকুর খনন করেছে, সে কারনে বাধ্য হয়ে আমাকে তার কাছে জমি বিক্রয় করতে হলো। সেখানে পুকুর কেটে ভাটায় মাটি নিয়ে যাচ্ছে। কসবা গ্রামের আব্দুস সালাম সহ স্থানীয় মাটি ব্যবসায়ীরা বলেন আমরা মিঠাপুর ভূমি অফিস সহ বিভিন্ন যায়গায় ম্যানেজ করে মাটির ব্যবসা করি। এবিষয়ে উপজেলা নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট (ভূমি)মোঃ সুমন জিহাদী বলেন আমাদের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা অবৈধ ভাবে ফসলী জমি নষ্ট করছে তদন্ত করে তাদের বিরেুাদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এব্যাপারে উপজেলা নিবার্হী অফিসার মুহাঃ আবু তাহির এর কার্যালয়ে গিয়ে না পেয়ে তার সাথে একাধিক বার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Related posts

Leave a Comment